প্রানিসেবা শপ | প্রানিসেবা ভেট | যোগাযোগ | আপনার জিজ্ঞাসা | ব্লগ     01847469945        BN | EN

ঘরে বসেই রাখুন খামারের খোঁজ

নাটোরের একটি ডেইরি খামারের ম্যানেজার জাহিদুল আলম ফরহাদ অত্যন্ত উদ্বিগ্ন, কারণ তাঁর একটি গাভী করোনাভাইরাসের এই বিশৃঙ্খল সময়ে বাছুর জন্ম দিতে চলেছে। তবে স্বস্তির বিষয় হচ্ছে তিনি ইতোমধ্যে সূর্যমুখী প্রাণিসেবা নামে একটি প্ল্যাটফর্ম থেকে তার ফোনে প্রসবের সময় জানিয়ে আগাম সতর্কতামূলক একটি এসএমএস পেয়েছেন। তাই তিনি গাভীটি যাতে আরো নিরাপদে প্রসব করতে পারে তার জন্য একটি পৃথক এবং পরিষ্কার জায়গার ব্যবস্থা করেছেন। এবং মোবাইলে সূর্যমুখী প্রাণিসেবা ও স্থানীয় প্রাণিসম্পদ অফিসের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদলের সাহায্যে তিনি আগের চেয়ে আরও নিরাপদে বাছুরের সমস্যাগুলি মোকাবেলা করতে পারছেন।

সাম্প্রতিক কোভিড-১৯ সংকট বাংলাদেশের দুগ্ধ ও গবাদিপশু শিল্পকে খুব খারাপভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করেছে। প্রত্যাশিত দাম না পাওয়ায় হতাশ কৃষকভাইদের দুধেভরা ক্যানগুলি ড্রেনে ফেলে দেওয়ার সংবাদ আমরা আশেপাশে প্রচুর দেখেছি। তবে এটি বিশালাকার সমস্যার একটি অংশমাত্র। দুধের বিক্রয়হ্রাসই এই শিল্পের একমাত্র সমস্যা নয়, এই শিল্পে সঠিকসময়ে দ্রুত প্রাণী স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থার সহজলভ্যতাও খুব কম। গবাদি প্রাণী অসুস্থ হলে কৃষকরা মানসম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবার সুযোগ পান না বলে শিল্পের ঝুঁকিপূর্ণ দিকটি আকাশছোঁয়া হয়ে যাচ্ছে। এই বিপদসংকুল সময়ে যে কয়টি উদ্যোগ কৃষকদের আশার আলো দেখাচ্ছে, তাদের মধ্যে সূর্যমুখী প্রাণিসেবাকে উজ্জ্বলতম বলে মনে হচ্ছে।

সূর্যমুখী প্রাণিসেবা গ্রামীণ অঞ্চলে IOT (ইন্টারনেট অফ থিংস) এবং RFID প্রযুক্তি ব্যবহার করে তৈরি করা এমন একটি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম যার মাধ্যমে গরুর প্রজাতি নির্ধারণ এবং রেকর্ড সংরক্ষণ, জিনগত বিকাশ, তথ্য সংরক্ষণ, প্রজনন, দুগ্ধ ব্যবস্থাপনা এবং প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয়। গবাদি প্রাণীর খামারিদের আর্থিকভাবে ঝুঁকিমুক্ত রাখতে গবাদি প্রাণিবীমা প্ল্যাটফর্মটির একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এই ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মটি এর আধুনিক সনাক্তিকরন প্রযুক্তির মাধ্যমে বীমার সাথে এক অনন্য সংযুক্তি স্থাপন করতে পারার কারণে অনেক কৃষক এখন কোনরকম অর্থনৈতিক ঝুঁকি ছাড়াই এই সংকট মোকাবেলা করতে পারছে।

পুরো প্রক্রিয়াটি খুবই সাধারণ। প্রাণীর পেটে একটি স্মার্ট বোলাস ডিভাইস ইনস্টল করা হয় যা প্রাণীটিকে সনাক্ত করতে এবং এর স্বাস্থ্যের উপর নজর রাখতে সহায়তা করে। এই বোলাস ফার্মের বেস স্টেশন এবং রাউটার ব্যবহার করে ক্লাউডে রাখা কেন্দ্রীয় সার্ভারে তথ্য প্রেরণ করে। এই সিস্টেমটি কৃষককে ঘরে বসে পুরো খামারের সবগুলো প্রাণীর স্বাস্থ্যের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করতে সক্ষম করে, যা এই বর্তমান সঙ্কটকালের একটি বড় প্রয়োজনীয়তা। প্ল্যাটফর্মটি এসএমএস এবং মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন দুটোই ব্যবহার করে কৃষকদের পূর্ববিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে হঠাৎ কোনও রোগ বা অসুস্থতার ক্ষেত্রে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ গ্রহণের ক্ষমতা দেয়। এর মাধ্যমে একজন কৃষক অসুস্থতা সম্পর্কিত যে কোন সতর্কতা পাওয়ার পরে প্রাণিসেবার বিশেষজ্ঞ ভেটেরিনারি টিমের সাহায্য নিতে পারেন। এটি তাদের তাৎক্ষণিক চিকিৎসার মাধ্যমে গবাদিপশু মৃত্যুর উচ্চঝুঁকির কারণ মোকাবেলায় সহায়তা করে।

এই জটিল সময়ে প্রাণিসেবার মতো নতুন প্রযুক্তির প্রাসঙ্গিকতা সম্পর্কে সূর্যমুখী লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফিদা হক বলেন, “আমরা বর্তমানে যে সংকটে আছি তা স্বাভাবিক শব্দটির সংজ্ঞা পরিবর্তন করে দিয়েছে কারণ কিছুই আর আগের অর্থে স্বাভাবিক থাকবে না। প্রাণিসেবার মতো আরো অনেক নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবন করতে হবেএবং চালু করতে হবে। কেবল তবেই আমরা নতুনভাবে কৃষিক্ষেত্রে ও খাদ্য সুরক্ষায় আমাদের বেগবান ধারা বজায় রাখতে সক্ষম হব “।